আজকে আমরা আলোচনা করব অনলাইন আয়ের সেরা সব কৌশল নিয়ে। তো বন্ধুরা সঙ্গেই থাকুন…

বর্তমান যুগ প্রযুক্তির যুগ। পৃথিবীর এমন কোন ক্ষেত্র খুঁজে পাওয়া দুষ্কর যেখানে প্রযুক্তির মর্মস্পর্শী ছোঁয়া লাগে নাই। সকালে ঘুম থেকে উঠা থেকে শুরু করে রাতে ঘুমানো অব্দি মানুষ প্রযুক্তির সাথে অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত।

Earn a Lot of Money from Online

বর্তমান বিশ্ব তাই অনলাইনে আয়ের দিকে বিশেষভাবে ঝুঁকে পড়ছে। এখন অনলাইন থেকে আয়ের যেমন সুন্দর সুন্দর উপায় আছে তেমনি ভুলপথে গেলে নিজের অর্থের বিশাল ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে।

তাই সঠিক সময় সঠিক সিদ্ধান্ত নেয়াটায় বুদ্ধিমানের কাজ।

তো বন্ধুরা চলুন দেখি কি থাকছে অনলাইন আয়ের সেরা সব কৌশল নিয়ে আমাদের আজকের এই আয়োজনে…

১. ফ্রিল্যান্সিং (Freelancing) এর মাধ্যমে আয়

Freelancing

ফ্রিল্যান্সিং হচ্ছে মুক্তপেশা। অনলাইন থেকে অর্থ আয়ের যে সকল পথ রয়েছে ফ্রিল্যান্সিং তাদের মধ্যে অন্যতম একটি।

বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে দক্ষ ফ্রিল্যান্সাররা তাদের দক্ষতার উপর ভিত্তি করে কাজ করে থাকেন এবং প্রচুর পরিমাণে অর্থ আয় করেন।

আর এসব মার্কেটপ্লেসে গিয়ে প্রথমে একাউন্ট করতে হয়, নিজের কাজের পোর্টফোলিও তৈরী করতে হয় এবং কোন নতুন কাজ পোস্ট করা হলে তাতে আবেদন করতে হয়।

এই মার্কেটপ্লেসগুলোর মধ্যে রয়েছে Fiverr, Freelancer, Belancer, People Per Hour, Microworkers.

এরকম আর ও শতাধিক মার্কেটপ্লেস রয়েছে যেখানে আপনি কাজ করে প্রচুর পরিমাণে বৈদেশিক মুদ্রা আয় করতে পারেন।

২. ব্লগিং (Blogging) করে বা অনলাইনে আর্টিকেল লিখে আয়

Blogging

আপনি যদি ভালমানের আর্টিকেল লিখতে জানেন তো ব্লগের মাধ্যমে অনলইন থেকে প্রচুর পরিমাণে আয় করতে পারেন।

আর এর জন্য আপনার নিজস্ব একটা ওয়েবসাইট থাকা আবশ্যক।

তবে আপনি চাইলে গুগল ব্লগার এর মাধ্যমে আপনার জন্য ফ্রিতে হ্যাঁ ঠিকই শুনেছেন সম্পূর্ণ ফ্রিতে একটি ওয়েবসাইট তৈরী করতে পারেন।

চাইলে সেরা সিএমএস (CMS-Content Management System) ওয়ার্ডপ্রেস দিয়েও একটি ওয়েবসাইট তৈরী করে নিতে পারেন।

আপনার ওয়েবসাইটটি তৈরী করার পর এতে পর্যাপ্ত কনটেন্ট এর সাথে যথেষ্ট পরিমাণ ভিজিটর আসলে আপনি বিভিন্ন এড নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে অনেক পরিমাণ অর্থ আয় করতে পারেন।

বিজ্ঞাপন প্রদর্শণ, ফেইসবুকের ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল, বিভিন্ন পণ্যের রিভিউ প্রদান সহ নানা উপায়ে আপনি আপনার ওয়েবসাইট থেকে আয় করতে পারবেন।

৩. অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং (Affiliate Marketing) এর মাধ্যমে আয়

Affiliate Marketing

বর্তমানে অনেকেই রয়েছেন যারা অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে অনলাইন থেকে প্রচুর পরিমাণ অর্থ আয় করছেন।

তবে এর জন্যও আপনার একটি নিজস্ব ওয়েবসাইট থাকলে খুবই ভাল হয়।

আপনার ওয়েবসাইটে কোন প্রতিষ্ঠানের পণ্যের বিক্রয় লিংক যুক্ত করবেন । অতপর কেউ উক্ত লিংক দ্বারা পণ্যটি ক্রয় করবে।

ফলে আপনার আয় আসা শুরু হবে। অনেক সময় পণ্যের দামের তুলনায় কমিশন অধিক পাওয়া যেতে পারে। শুনতে অবাক লাগলেও এটা কিন্তু সত্য।

আপনার যদি নিজস্ব ওয়েবসাইট না থাকে তবে আপনি অ্যামাজন (Amazon), ইবেই (E-bay) সহ আরও অনেক ওয়েবসাইটে একাউন্ট করতে পারেন আর আপনার অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর শুভ যাত্রা শুরু করতে পারেন।

বিস্তারিত জানতে চান? তাহলে পড়ুন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি? কিভাবে শুরু করা যায়? (দেখুন বিস্তারিত!)

৪. ইউটিউবার (Youtuber) হয়ে আয়

Youtuber

একটু সময় পেলেই যার ভিডিও বানাতে মন চায়, টিক টক, লাইকীতে যে ব্যক্তি ব্যস্ত সে নির্ধারিত কিছু নিয়ম অনুসরণ করে একজন দক্ষ ইউটিউবার হয়ে অনলাইন থেকে প্রচুর পরিমাণ অর্থ আয় করতে পারে।

বাংলাদেশের অনেকেই রয়েছেন যারা ইউটিউবের মাধ্যমে ২০-২৫ লক্ষ টাকা/প্রতি মাস আয় করছেন। একটু অবাক লাগলেও এটাই বাস্তব।

যদি ভালমানের কনটেন্ট তৈরী করতে পারেন, সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে জানেন তবে আপনি খুব অল্প সময়েই অনেক ভিজিটর পেয়ে যাবেন।

ফলে দ্রুত নিজেকে লক্ষ লক্ষ প্রোফেশনালদের মাঝে দাঁড় করাতে পারবেন।

৫. ভিডিও দেখার মাধ্যমে আয় (Earn Money by Watching Video)

Watching Video

ভিডি দেখেও যে অনলাইন থেকে অর্থ আয় করা যায় এটা অনেকের কাছে অবিশ্বাস্য বলে মনে হলেও এটাই কিন্তু সত্য।

এমন অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে যেগুলো সচরাচর তাদের ভিজিটরদের ভিডিও দেখার মাধ্যমে পেমেন্ট করে থাকে।

তবে অনেক প্রতিষ্ঠান চটকদার লোভনীয বিজ্ঞাপন প্রদর্শণ করে যেগুলো সচরাচর পেমেন্ট করে না, তাই আপনাকে থাকতে হবে সাবধান।

যখন দেখবেন যে কোন প্রতিষ্ঠান একটি স্বল্পমাত্রার ভিডিও দেখার মাধ্যমে বেশি পরিমাণ অর্থের লোভ দেখাচ্ছে তখনই বুঝতে হবে এটি স্প্যাম।

৬. ওয়েব ডিজাইন (Web Design) বা ওয়েবসাইট বানিয়ে আয়

Web Design

বর্তমানে অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জনের একটি সেরা মাধ্যম হচ্ছে ওয়েব ডিজাইন। অনলাইন মার্কেটপ্লেসে একজন দক্ষ ওয়েব ডিজাইনারের রয়েছে প্রচুরি চাহিদা।

একজন দক্ষ ওয়েব ডিজাইনার হতে পারলে আপনি যে কি পরিমাণ অর্থ আয় করতে পারবেন তার হিসেব গুনতে আপনি পারবেন বলে আমার মনে হয় না!

অনলাইনে বিভিন্ন টিউটোরিয়াল রয়েছে। যেগুলো অনুসরন করে সহজেই আপনি লক্ষ লক্ষ ওয়েব ডিজাইনারদের মাঝে নিজেকে উপস্থাপন করতে পারেন।

যদি বুঝে থাকেন তো আমি বলব একটি ওয়েবসাইটই হতে পারে আপনার সারাজীবনের স্থায়ী উপার্জনের অন্যতম মাধ্যম।

আরও দেখুন ওয়েব ডিজাইন কি? ওয়েব ডিজাইন শেখার পূর্ণাঙ্গ গাইডলাইন।

৭. গ্রাফিক ডিজাইনের (Graphic Design) মাধ্যমে আয়

Graphics Design

এক টুকরা কাগজ আর একটি কলম হাতে আসতেই যদি আপনার আকিবুকির ঝোঁক মাথায় চেপে বসে তবে আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইন এর মাধ্যমে প্রতি মাসে ৩০ হাজার থেকে প্রায় লক্ষাধিক পরিমাণ অর্থ আয় করতে পারেন।

অনলাইনে একজন দক্ষ গ্রাফিক ডিজাইনারের রয়েছে প্রচুর চাহিদা। তবে এক্ষেত্রে আপনার সৃজনশীলতা থাকতে হবে শতভাগ।

ফটোশোপ, ইলাস্ট্রেটর, ইন ডিজাইন, থ্রিডি ভালভাবে রপ্ত করতে হবে।

আরও পড়ুন ফটোশপ শিখুন মাত্র ১ দিনেই (মাস্টার ট্রেইনিং)

৮. ড্রপশিপিং (Dropshipping) এর মাধ্যমে আয়

Drop Shipping

অল্প দামে কোন পণ্য ক্রয় করে তাকে লাভজনকভাবে বিক্রি করাটা মূলত ড্রপশিপিং এর বিশেষ বৈশিষ্ট্য।

ধরুন আপনি গ্রামে বাস করেন। আপনার চাচার একটা ছোট্ট সেলাই কারখানা আছে, সেখানে দক্ষ কারিগর আছে যারা সুন্দরমানের পোষাক তৈরী করেন।

এইসব পোশাক আপনি ৩০০ টাকা প্রতি পিচ হিসেবে ক্রয় করে আপনার ওয়েবসাইটে যুক্ত করে প্রতি পিচ ৭০০ টাকা করে বিক্রি করতে পারেন।

ফলে প্রতি পিচে আপনার লাভ দাড়াবে ৪০০ টাকা। ভাবুন এমনি করে যদি ১০০ পিচ বিক্রি করতে পারেন তো আপনার লভ্যাংশ কত আসবে?

আপনার এলাকায় যদি এমন সুযোগ থেকে থাকে তবে অবশ্যই এটিকে কাজে লাগাতে ভুলবেন না।

আয় কিছুটা বেশি হলে আমাকেও একটু দিবেন কেমন!!

৯. ডাটা এন্ট্রি (Data Entry) করে আয়

Data Entry

অনলাইনে যত প্রকারের সহজ কাজ রয়েছে ডাটা এন্ট্রি তাদের মধ্যে অন্যতম। অনেক সহজ হওয়ায় শুরুর দিকে অনেকেই এটিকে প্রাধান্য দিয়ে থাকেন।

বিভিন্ন ধরণের ডাটা এন্ট্রির কাজ অনলাইনে পাওয়া যায়। যেমন- ওয়ার্ড প্রসেসিং, ডাটা ক্লিনিং, ওয়েব রিসার্চ, কপি পেস্ট, অডিও টু টেক্সট, ইমেজ টু টেক্সট, ক্যাটালগ ডাটা এন্ট্রি, ক্যাপচা টাইপিং ইত্যাদি।

চাইলে আপনিও এই সহজ কাজটির মাধ্যমে শুরু করতে পারেন আপনার অনলাইন আয়ের যাত্রা।

আরও পড়তে পারেন ডাটা এন্ট্রি কি? বিভিন্ন প্রকারের ডাটা এন্ট্রি জব।

১০. ই-মেইল মার্কেটিং (E-mail Marketing) এর মাধ্যমে আয়

E-mail Marketing

অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জনের সহজ কাজগুলোর মধ্যে ইমেইল মার্কেটিং একটি। অনেক প্রতিষ্ঠানের সক্রিয় ইমেইল তালিকা প্রয়োজন পড়ে।

অনেক সময় বিভিন্ন ওয়েবসাইটে ভিজিট করার পর আমরা যখন কোন সেবা ক্রয় করতে চাই কিংবা কোন ফাইল ডাউনলোড করতে চাই তখন আমাদের মেইল দিয়ে ক্রয় করতে কিংবা ডাউনলোড করতে হয়।

এই মেইলগুলো তারা পরবর্তীতে কোন প্রতিষ্ঠানের নিকট নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থের বিনিময়ে বিক্রি করে থাকেন। বর্তমানে এর মাধ্যমে ঘরে বসেই অনেক ফ্রিল্যান্সাররা অনেক পরিমাণ অর্থ আয় করছেন।

এর মাধ্যমে আয় করতে হলে আপনাকে জানতে হবে ইমেইল মার্কেটিং কি, কিভাবে করতে হয়, সুবিধা, অসুবিধা ইত্যাদি বিষয়।

ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে ঘরে বসেই লক্ষাধিক পরিমাণ অর্থ আয় করা সম্ভব।

১১. এসইও (SEO) করে আয়

Search Engine Optimization

Search Engin Optimization এর সংক্ষিপ্ত রুপ হচ্ছে এসইও। দুই ধরণের এসইও রয়েছে। অনপেইজ এসইও এবং অফপেইজ এসইও।

সার্চ ইঞ্জিনে একটি ওয়েবসাইকে সার্চ ফলাফলে সবার উপরে প্রদর্শণ করানোর যে কৌশল মূলত তাকেই আমরা এসইও বলে থাকি

একটি ওয়েবসাইটের মার্কেটিং এর জন্য সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন অনেক গুরুত্ব বহন করে। ওয়েবসাইটের এসইও করার মাধ্যমে আপনি প্রচুর পরিমাণে অর্থ আয় করতে পারেন।

এটি অনলাইন আয়ের সেরা সব কৌশল এর মধ্যে অন্যতম একটি।

তো বন্ধুরা অনলাইন আয়ের সেরা সব কৌশল দেখেই যে তড়িঘড়ি করে একটিতে যাবেন তা কিন্তু ঠিক হবে না। খুব ভালভাবে পর্যক্ষেন করে একটি নির্দিষ্ট দিকে এগিয়ে যান আপনি সফল হবেনই ইনশাআল্লাহ্।

আরও জানুন এসইও কি এবং কত প্রকার? এসইও শেখার গুরুত্ব (কমন বিষয়)


3 Comments

Ruhul · May 8, 2021 at 5:01 pm

অনেক সুন্দর লিখেছেন ভাই,,, ধন্যবাদ এমন একটা পোস্ট উপহার দেওয়ার জন্য।

Rimon · June 13, 2021 at 2:22 am

খুবই সুন্দর এবং দরকারি একটি পোস্ট! ভাই কোন পথে গেলে নিশ্চিত সফল হওয়া যাবে?

    AR_TechnoTwice_Team · June 13, 2021 at 4:18 am

    যেটি আপনার পছন্দ + আপনি সহজে করতে পারবেন সেই পথে যাওয়ায় ভাল। ধন্যবাদ!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *